ক্ষমা চাইলেন সারিকা

সারিকার অনিয়মিত চলাফেরার কারণে তিনি অনেকবারই সমালোচিত হয়েছেন। কিছু দিন আগেই তাকে নিষিদ্ধ করা হয় টেলিভিশন নাটক থেকে। শিডিউল ফাঁসানোর অভিযোগ তুলে তাকে গত আগস্টে ছয় মাসের জন্য নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়। গত ২৮ জুলাই টেলিভিশন প্রোগ্রাম প্রডিউসারস্ অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের কার্যনির্বাহী সভায় সর্বসম্মতিক্রমে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সারিকাকে নিষিদ্ধ কার্যকর শুরু হয়েছে গত ১ আগস্ট থেকে।

অশিল্পীসুলভ আচরণের জন্য নিষিদ্ধ সারিকাকে অনেকদিন থেকেই পাওয়া যাচ্ছিল না। তবে অনেকটা হঠাত করেই রোববার (২৩ সেপ্টেম্বর) ফেসবুকে সরব হন তিনি। প্রোফাইলের ছবি পরিবর্তন করেন। তারপর একটি স্ট্যাটাস দিয়ে ক্ষমা চান সবার কাছে।

সারিকা বলেন, ‘গত কয়েক মাস আমার জীবনে কঠিন সময় গেছে। সামলে নিতে সময় লেগেছে। আমার মেয়েকে স্কুলে দেওয়ার জন্য প্রস্তুত করছিলাম। আগামী সপ্তাহ থেকে সে স্কুলে যাবে। এরপর আবার হয়তো নাটক কিংবা বিজ্ঞাপনচিত্রের শুটিং শুরু করতে পারব।’

সারিকা ফেসবুক পোস্টে লিখেছেন, ‘সরি, পাঁচ অক্ষরের একটা শব্দ। সবার কাছে আজ সত্যি মনের গভীর থেকে মাফ চাইছি—পরিবার, বন্ধু, সহকর্মী, আমার শুভাকাঙ্ক্ষীদের কাছে। কখনো যদি জেনে বা না জেনে এতটুকু আঘাত করে থাকি, অনুগ্রহ করে ক্ষমা করবেন। আমার চারপাশের কঠিন পরিস্থিতি ও শারীরিক সমস্যার কারণে কিছু জটিলতায় ভুগছিলাম। তবে এটাও মানছি, সব তা না। নিজের ব্যাপারেও সতর্ক ছিলাম না, ভুলত্রুটি যতটুকু পারি শুধরে নেওয়ার চেষ্টা করব। কারণ শেখার না আছে শেষ, না আছে বয়স। আজ না হয় পুরোনো কষ্ট মুছে ফেলে নতুন করে শুরু করি সব। আমরা সবাই এক।’

সারিকা আরো লেখেন, দুই দিনের পৃথিবী। এটাই আমরা বারবার ভুলে যাই। আর প্রকৃতি ততবারই চেষ্টা চালিয়ে যায় স্মরণ করিয়ে দেয়ার জন্য। তাই আমিও সবাইকে ক্ষমা করলাম, যাদের কারণে আমি কষ্ট পেয়েছি বা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি। আর আমি অত্যন্ত খুশি হবো কেউ যদি মনে করেন কোনো ব্যক্তিগত ঘটনা পরিস্কার করে নেয়া প্রয়োজন, তাহলে বলুন। আমি কথা দিচ্ছি, যতটুকু পারি সমাধানের চেষ্টা করবো।

২০১০ সালে নির্মাতা আশুতোষ সুজন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কবিতা অবলম্বনে তৈরি করেন ‘ক্যামেলিয়া’। এই নাটকে অভিনয় করেই নাটকে অভিনয় শুরু হয় তার। এরাপর অভিনয় করেছেন অনেক নাটকে।

Spread the love
  • 6
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    6
    Shares

আপনার মন্তব্য লিখুন