ছবি তৈরীর গল্প-দ্য ওল্ড মেন এন্ড দ্য গার্ল

।।আফজাল হোসেন মুন্না।।

গত চারমাস আমাদের কথা বলতে বলতে আমার কথা আর বলা হয়নি। আমার মানে আমার ছবির কথা। ভিডিওটা যখন পোস্ট করি তখন মাথায় তেমন কিছুই ছিলনা, একটা আইডিয়া ছিল, পকেটে ত্রিশ হাজার টাকা ছিল। ভাবলাম ক্যামেরা, প্যানেল সবইতো আছে। এটা দিয়েই ৭/৮ মিনিটের একটা শর্ট বানিয়ে ফেলতে পারব। মুভমেন্টটি ঘোষনা করার ঘন্টা খানেকের মধ্যেই দুজন অভিনেত্র নক করলেন। একজন নিজে ফান্ড করতে চান আরেকজন প্রডিউস করতে চান। যেহেতু এই ফিল্ম এর ভবিষ্যত অজানা এবং ব্যবসায়িক কারনে বানাচ্ছিনা তাই যে ফান্ড করবে তার সাথে কথা আগালাম। দেড় ঘন্টার বিশাল ঝগড়া। তার শর্ত কিছুতেই তার নাম কোথাও দেয়া যাবেনা। কাস্টিং তো দুর। গল্প অনুযায়ী তাকে কাস্ট করার সুযোগ এমনিতেও ছিলনা কিন্তু গোল বাধল নাম নিয়ে। কোনভাবে তাকে রাজি করাতে পারিনি। অবশেষে কয়েকদিন পর রকমারি মেরাথন ঝগড়া শেষে ছদ্মনাম ব্যবহারের অনুমতি দিলেন।


আমার টাকা আর ফান্ড মিলিয়ে আরেকটু খুলে লিখতে বসলাম। প্রডাকশনের লেন্থ বাড়ল। উপরি তলের গল্পর একটা পার্সপেক্টিভ দেখা গেলেও সিনেমার নানা ছল প্রয়োগে আর ৯/১০ টি ইস্যু তুলে আনলাম। কারন আমি জানতামনা আর কয়টি ছবি হবে তাই নারি নির্যাতন ও অবদমনের প্রচুর পারসপেক্টিভ দেখাতে চাইলাম।

তিশার ডেট চাওয়ার দুইদিনের মধ্যে পেলাম কারন সেও প্রচন্ড আগ্রহী কাজটা করায়, সেও তার জায়গা থেকে স্ট্যান্ড নিতে চায়। শুটে গেলাম আমরা। এমন একটা এলাকায় শুট করলাম যেখানে শুট করাতো দুর মানুষের ভীরে দমটাও নেয়া যায়না, তাদেরকে আটকানোও যায়না যাই হোক প্যানেলে এস ফুটেজ প্লে করে দেখি হাই স্পিড শটগুলোর রং গুবলেট হয়ে গেছে লাইট কমে গেছিল তাই। রিশুটে যেতে হবে।

তিশা ঈদের আগের শত ব্যস্ততার মধ্যেও দেবী হয়ে আবির্ভুত হল এবং চিরকৃতজ্ঞতায় বাধল। অন্যদিকে তৃতীয়দিনের শুটিং এর টাকার যোগান দিল Monkey Films এর অজয়।

শুট খতম, সাউন্ড এর টাকা নেই। বন্ধু মামুন কিছু টাকা দিল, ফলি করালাম কিছু, মোটেই পছন্দ হলনা। অন্যদিকে সময়টা ঈদের আগে হওয়ায় দেশে যারা ভাল কাজ করে তারা বিজি এবং আমার হাতে আছে খুব অল্প টাকা। বন্ধু শপথ কে ফোন দিলাম। তোমাদের ওখানে (ভারত) সাউন্ড আর মিউজিক এর কাজ কম টাকায় ভাল করবে এমন কারোর খোজ দাও। সে কারোর খোজ দিলনা বরঞ্চ সাউন্ড আর মিউজিকের টাকাটা নিজেই দিতে চাইল। আমাদের সাথে যুক্ত হল তার প্রতিষ্ঠান Doab Uncut Motion. সেখানেও দুইখান সাউন্ড এর লোক এবং একখান মিউজিক ডিরেক্টর বদলে তৈরী হলো the old man and the girl এর স্কোর এবং সাউন্ড।

আপাতত এই হচ্ছে আমার ছবি বানানোর কাহিনি….
সেইসাথে জেরি, নুর ইমরান, তামিম সহ যারা এক কথায় এই প্রজেক্টে ঝাপিয়ে পড়েছে নিজেদের ক্যারিয়ার বা ইমেজের কথা না ভেবে তাদেরকেও স্মরণ করতে চাই। স্মরণ করতে চাই অভিনেত্রি শম্পা রেজাকে, আমার এলোমেলো ডেট ফেলে দেবার অভ্যাসের কারনে যিনি প্রজেক্টে থাকতে পারেননি শত ইচ্ছা থাকা স্বত্ত্বেও। পেশায় মডেল হলেও প্রিয়াংকা কস্টিউমের কাজটা করেছে দারুন।

বিশাল একদিকে অভিনয়, একদিকে লোকেশন দেখা এবং প্রপস নয় রিতিমত রডের বাড়ি খাওয়াটাকে নিয়ে গেছে শিল্পের পর্যায়ে পাভেলের বাইকের লাইট আর আয়না ভেঙ্গে ফেললাম সত্যি সত্যি, গাজি, তমাল, রিফাতরা জান দিয়ে খাটল । শেষ মুহুর্তে একটা সিন বাড়ালাম। অভিনয়ে একেবারে নতুন মিম আঘাত প্রাপ্ত হবার বিশাল সম্ভাবনা থাকা সত্ত্বেও তার সর্বোচ্চটা দিয়ে পারফর্ম করে গেল। আবু ভাই শত কাজ ফেলে আবারো সময় দিলেন প্যাচওয়র্ক আর ডাবিং এ। আমাকে বলতে হবে খায়ের ভাই, সাহিল রনি এবং সাজ্জাদের কথাও যারা সরাসরি প্রজেক্টে না থেকেও নানাভাবে সাহায্য করেছেন। শুটিং লোকেশনের আওয়ারীলিগের নেতাকর্মীগন যারা পুরোটা সময় না থাকলে ওই ঘনবসতীপুর্ণ এলাকায় একটা শটও নিতে পারতাম কিনা সন্দেহ।

আফজাল হোসেন মুন্না, চলচ্চিত্রকার

 

এবং আবারো তিশা, তৃতীয়দিনের গরম ও সাফোকেশনে যখন আমি অজ্ঞান হই হই অবস্থা তখন তার নার্সিং আর কনসাল্টিং আমাকে দ্রুত সময়ের মধ্যে দ্বার করিয়ে দিয়েছে যদিও বেশ কিছু সময় একশন বললেও গলা দিয়ে আওয়াজ বের হচ্ছিলনা।
কার কার নাম বাদ পড়ল জানিনা, তবে অগনিত মানুষের সেচ্ছাশ্রম আর ভালবাসায় দাড়ালো দীর্ঘ্য ২৫ মিনিটের ছবিটি।
প্রিমিয়ার হয়ে গেল এবার ছবিটি তার সহযোদ্ধাদের নিয়ে ছড়িয়ে পড়বে এপারে ওপারে এবং ওইইপারে সর্বত্র।

Spread the love
  • 339
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    339
    Shares

আপনার মন্তব্য লিখুন