আত্মহত্যার চেষ্টা করলেই কারাদণ্ড বা জরিমানা

আত্মহত্যা করে মরে গেলে তো গেলেন, কিন্তু বাই চান্স আত্মহত্যা ব্যর্থ হয়ে গেলে? তখন গুনতে হবে জরিমানা বা কারাদন্ড। কেনিয়ায় এমনি নিয়ম রয়েছে। সেখানে আত্মহত্যার বিষয়টিকে সামাজিকভাবে লজ্জার বিষয় হিসাবে দেখা হয়। কেনিয়ার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, দেশটিতে প্রতিদিন অন্তত চারজন আত্মহত্যা করছে। তা সত্ত্বেও বিষয়টিকে এখনো লজ্জার একটি বিষয় বলে মনে করা হয়, ফলে এই ঝুঁকিতে থাকা মানুষজনকে যথাযথ সেবাও দেয়া সম্ভব হয় না।এ ধরণের চেষ্টা যারা করে, উল্টো আইন করে তাদের শাস্তি দেয়া হয়।

দেশটির ফৌজদারি আইন অনুযায়ী, আত্মহত্যার চেষ্টাকে হত্যার মতো অপরাধের সাথে সংযুক্ত করে রাখা হয়েছে। এরকম চেষ্টাকারীদের কারাদণ্ড, জরিমানা বা উভয় দণ্ডই হতে পারে।
স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এ ধরণের ঘটনা এড়াতে এবং আত্মহত্যা ঠেকাতে সমাজের অন্যান্য ব্যক্তিদের এগিয়ে আনতে হলে এই আইন বদলানো দরকার।

নাইরোবির মানসিক স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ক্যাথরিন মুতিসা বলছেন, ”আমি জানি, অপরাধের তালিকা থেকে আত্মহত্যার মতো বিষয় আলাদা করার পরিকল্পনা চলছে। কিন্তু সেই প্রক্রিয়া চলতে চলতে আইনটি অন্তত বদলানো যেতে পারে।”
আরো বলেন, ”আসল কারণ হলো, এটাকে অপরাধ হিসাবে বিবেচনার কারণে অনেক মানুষ কোন চিকিৎসা পায় না। আমি যদি আত্মহত্যার চেষ্টা করি, আমি কারো সঙ্গে সেটি নিয়ে কথা বলতে পারবো না, সুতরাং আমি কোন চিকিৎসাও পাবো না। এর ফলে মানুষের চিকিৎসা সেবা পাওয়ার সুযোগ কমে যাচ্ছে। যাদেরকে আত্মহত্যা করা থেকে হয়তো ঠেকানো যেতো, তাদেরকেও কোন সহায়তা দেয়া যাচ্ছে না।”

কেনিয়া জুড়ে আত্মহত্যার চেষ্টাকারী মানুষদের দোষারোপ আর বিচারের সংস্কৃতিরও পরিবর্তন আনা জরুরী বলে মনে করেন অনেকে। কেনিয়ার অনেক প্রশাসক এবং বিচারক এখন মনে করছেন, এ ধরণের মানুষদের মানসিক সেবা দরকার এবং তাদের চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে পাঠানো উচিত।

 

সূত্রঃবিবিসি

Spread the love
  • 4
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    4
    Shares

আপনার মন্তব্য লিখুন