অদম্য মা: প্রতিবন্ধী সন্তানকে নিয়ে গেছেন অনন্য উচ্চতায়

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় এক মা প্রতিবন্ধী সন্তানকে কোলে নিয়ে কেন্দ্রে যাচ্ছেন। এই ছবি সাড়া জাগায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। মায়ের এমন ভালোবাসায় মুগ্ধ হয় অনেকে। যাতে ফুটে উঠে এক অদম্য মায়ের তার প্রতিবন্ধী সন্তানের প্রতি ভালোবাসা

মা সীমা সরকার বলেন, এক ডাক্তার বলেছিল সে কোনো দিন কথা বলতে পারবে না। কাউকে চিনবে না। সে হাবাগোবা হবে। তখন থেকেই জেদ, দেখি আমি একে কী করতে পারি।

তিনি বলেন, সব সাপোর্ট আমার। তাকে প্রায় ছয় বছর বয়সে স্কুলে ভর্তি করাই। তাকে কোলে করে ক্লাসে নিয়ে যেতাম আর  আমি বসে থাকতাম।

স্বল্প আয়ের পরিবারে প্রতিবন্ধী ছেলেকে পড়াতে গিয়ে আর্থিক অনটনেও পড়েছেন সীমা সরকার। তিনি বলেন, আমরা নিজেরা কষ্ট করেছি তারপরেও তার সব চাহিদা পূরণ করার চেষ্টা করেছি। যেন সে কোনো দিন বলতে না পারে মা বাবা আমাকে অবহেলা করেছে। তাকে ভালো স্কুলে পড়াইছি, ভালো শিক্ষক দিয়ে পড়াইছি, মানে আমি কষ্ট করেছি তাকে কষ্ট করতে দেই নি।

বাংলাদেশে প্রায় কোনো শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানেই শারিরীক প্রতিবন্ধীদের চলাচলের কোনো ব্যবস্থা নেই।  ছেলেকে কোলে নিয়ে তিন-চার তলা সিঁড়িও বেয়েছেন সীমা সরকার। তিনি বলেন, যখন পরীক্ষা চলতো তখন তিন-চার তলায় আমি একাই তাকে তুলে দিয়ে আসতাম।

আরো বলেন, একা একা পরীক্ষা দিবে মনটা ছোট হয়ে থাকবে এই ভেবে তাকে একা পরীক্ষা দিতে দিই নি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হলে স্বপরিবারে নেত্রকোনা থেকে ঢাকায় চলে আসতে হবে হৃদয়ের পরিবারকে। মা সীমা সরকার বলেন, তাকে নিয়ে আমার  স্বপ্নই ছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াব।

তিনি বলেন, তাকে এমনভাবে তৈরি করব যেন আমি বেঁচে না থাকলেও তার চলতে কষ্ট না হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ে পাশ করে হৃদয় সরকারকে ভালো অবস্থানে দেখে যেতে চান তার মা। মা সীমা সরকার বলেন, তাকে যদি ভালো একটা প্রতিষ্ঠানে দেখে যেতে পারি তাহলেই শান্তি। বুঝবো আমি যে এত কষ্ট করেছি তার ফল এটা।

ছবি ও সংবাদঃ   বিবিসি

Spread the love
  • 55
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    55
    Shares

আপনার মন্তব্য লিখুন