ভদ্রবেশী চোর!

সিঁধ কেটে বা আয়োজন করে কোনো বাড়ি বা দোকানে চুরি করার রীতিটা হয়তো এখনো বিলুপ্ত হয় নি। তবে অতএকটা দেখা যায় না। ভদ্রবেশী চোরের সংখ্যাটাই এখন বেশি। দোকান বা শপিং মলগুলোতে খরিদ্দারের বেশ নিয়ে আসা চোরের ঘটনা কম বেশি অনেকেই জানেন। এমনসব কাস্টমার থেকে দোকানদারদের  খুব সচেতন থাকতে হয়। এরা অনেকটা ভয়ানক। সন্দেহবশত কিছু বলাটাও নিরাপদ নয়। যুক্তরাষ্ট্রের অরেগনের হিলসবোরো এলাকাতে এক শ্রেণির ক্রেতার মাঝে দোকান থেকে এটা-ওটা চুরি করে নেয়ার প্রবণতা এত বেশি যে, চুরি কমাতে আইনও খুব কঠোর করা হয়েছে৷ ধরা পড়লে দশ বছর পর্যন্ত জেল হতে পারে, সঙ্গে রয়েছে ২ লক্ষ ৫০ হাজার ডলার পর্যন্ত জরিমানার ঝুঁকি৷ তারপরও চুরি কমছেই না৷

Image result for ভদ্রবেশী চোর!

সেদিন এক দোকানে ঘটেছে লঙ্কাকাণ্ড৷ এক নারীকে দোকানের বাইরে অনেকটা দূর পর্যন্ত তাড়া করে গিয়ে ধরলেন এক দোকানকর্মী৷ কৃষ্ণাঙ্গ দোকানকর্মীর অভিযোগ, ওই নারী দু-দু’টো জিনিস লুকিয়ে ব্যাগে ঢুকিয়ে চম্পট দিচ্ছিলেন৷ স্বাভাবিক কারণেই তিনি ধৃত নারীকে দোকানে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছিলেন আর ওই নারী চাচ্ছিলেন ছুটে পালাতে৷

ধরা পড়া নারীকে দোকানের ক্যাশ রেজিস্টারের কাছাকাছি নিয়ে আসার পর থেকে পুরো দৃশ্য ধারণ করেছে এক কিশোর৷ তাতে দেখা গেছে, প্রথমে গলার জোরে, তারপর গায়ের জোরে এবং সব শেষে পুলিশের ভয় দেখিয়ে রেহাই পাওয়ার কী মরিয়া চেষ্টাই না করেছেন সেই নারী৷ কিন্তু কিছুতেই কাজ হয়নি৷ পুলিশ না আসা পর্যন্ত ‘চোর’কে ছাড়েননি দোকানকর্মী৷ সংবাদমাধ্যম এবং সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে নানাভাবে এসেছে এই ভিডিও৷ অসংখ্য মানুষ দেখেছেন ভিডিওটি৷ দেড় বছরে ইউটিউবে শুধু একটি ভিডিওই দেখা হয়েছে ৬৭ লাখেরও বেশি বার৷

ভিডিও দেখে দোকানকর্মীর প্রশংসা করেছেন অনেকেই৷ তবে স্থানীয় এক পুলিশ কর্মকর্তা সংবাদ মাধ্যমকে বলেছেন, এমন ক্ষেত্রে অভিযুক্তের ওপর এভাবে চড়াও না হয়ে ছবি তুলে রেখে তার সহায়তায় পুলিশের কাছে অভিযোগ জানানোই সবচেয়ে ভালো৷

সূত্রঃডিডব্লিউ

Spread the love
  • 5
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    5
    Shares

আপনার মন্তব্য লিখুন