কেন আত্মহত্যা করতে চেয়েছিলেন এ আর রহমান?

সঙ্গীত  জগতের এক নক্ষত্রেরে নাম এ আর রহমান। শুধু এ উপমহাদেশে নয়, হলিউডেও সুনাম রয়েছে তার সুরের। অসাধারণ সঙ্গীত পরিচালনার করে অস্কার এসেছিলো তার ঝুলিতে। সুরের জাদুতে বিশ্ববাসীকে মাতিয়ে রেখেছেন অনেক দিন আগে থেকেই ৷ এখন তো তাঁর সুরের মূর্ছনায় মাতোয়ারা হলিউড-বলিউড৷ এমন চূড়ান্ত সফল ব্যক্তি একটা সময় নাকি নিজেকে ব্যর্থ বলে মনে করতেন৷ আর একটা সময় নাকি তিনি আত্মহত্যা করার সিদ্ধান্তে চলে যান৷ এমনটাই জানিয়েছে এ আর রহমান ৷

Image result for এ আর রহমান

রবিবার মুক্তি পেল এ আর রহমানের আত্মজীবনীমূলক বই ‘নোটস অফ এ ড্রিম’ । আত্মজীবনী প্রকাশ অনুষ্ঠানে জীবনের কঠিনতম সময় প্রসঙ্গে রহমান বলেন, ‘২৫ বছর বয়স পর্যন্ত আমি আত্মহত্যার কথা ভবতাম। আমরা বেশিরভাগ মানুষই নিজেদের যথেষ্ট যোগ্য মনে করি না। বাবাকে হারানোর পর শূন্যতা তৈরি হয়ছিল।’

তিনি আরও বলেন, ‘সেই সময় আমার জীবনে অনেক কিছু ঘটেছিল। সেসব ঘটনাই আমাকে সাহসী করে তোলে। মৃত্যু সবার কাছেই স্থায়ী বিষয়। সব সৃষ্টিরই যখন শেষ আছে, তখন কেন কোনও একটি বিষয় নিয়ে উদ্বিগ্ন হব?’

১৯৬৭ সালে ৬ জানুয়ারি এ আর রহমানের জন্ম হয়েছিল চেন্নাইয়ের এক হিন্দু পরিবারে। রহমানের বাবা সুরকার আর কে শেখর তার নাম রেখেছিলেন আর এস দীলিপ কুমার। ১৯৮৮ সালে তার বয়স যখন ২১ সে সময় তার বোন কঠিন অসুখে আক্রান্ত হন।

জানা গেছে, তখন আবদুল কাদের জিলানী নামের এক মুসলিম পীরের দোয়ায় নাকি তার বোন ঐশ্বরিকভাবে সুস্থ হয়ে যান। এরপরই রহমানের গোটা পরিবার ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন। এস দীলিপ কুমার-এর নাম পরিবর্তিত হয়ে রাখা হয় আল্লারাখা রহমান।

১৯৯২ সালে মণিরত্নম পরিচালিত একটি কফির বিজ্ঞাপনের জিঙ্গেলে কণ্ঠ দিয়ে তাক লাগিয়ে দেন। এরপরই তিনি মণিরত্নমের তামিল সিনেমা ‘রোজা’ ছবিতে প্রথম সঙ্গীত পরিচালক হিসেবে কাজের সুযোগ পান।

 

Spread the love
  • 9
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    9
    Shares

আপনার মন্তব্য লিখুন