মেয়েকে হত্যা করে পাওনাদারদের ফাঁসানোর চেষ্টা, বাবা গ্রেফতার

বরিশালে পাওনাদারকে ফাঁসাতে গিয়ে নিজের মেয়ে অথৈকে হত্যা করেছে তার বাবা গোলাম মোস্তফা। এ ঘটনায় পিতাকে (গোলাম মোস্তফা)গ্রেফতার করে পুলিশ।

মঙ্গলবার সকালে মেয়ে সাবিয়া আক্তার অথৈকে (১১) নগরীর সদর রোডের অনামী লেনে বিসিসির পাম্প হাউজে নিয়ে বিষ খাইয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেন তিনি। সাপানিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী ছিলেন অথৈ।

Image result for মেয়েকে হত্যা করে পাওনাদারদের ফাঁসানোর চেষ্টা, বাবা গ্রেফতার

পুলিশ ওই হত্যাকাণ্ডের পর তাৎক্ষণিক কোনো ক্লু না পেলেও অথৈর বাবা বার বার তার পাওনাদারদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করছিলেন। পাওনাদারদের জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশ ওই হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে কোনো গুরুত্বপূর্ণ তথ্য না পাওয়ায় অথৈর বাবাকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করে। এক পর্যায়ে পাওয়ানারদের ফাঁসাতে মেয়ে অথৈকে হত্যার কথা পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করে গোলাম মোস্তফা।

বুধবার দুপুরে বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার কার্যালয় এক সংবাদ সম্মেলনে একথা জানান পুলিশ কমিশনার মোশারফ হোসেন।

তিনি আরো বলেন, পেশায় অথৈর বাবা কাজী গোলাম মোস্তফা বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের পানি শাখার একজন কর্মচারী। কয়েক লাখ টাকা দেনাগ্রস্থ তিনি। সেটা পরিশোধ করতে পারছিলেন না মোস্তফা। এক পর্যায় দেনা থেকে বাচার কৌশল হিসেবে নিজের মেয়েকে হত্যা করে পাওনাদারদের ফাঁসানোর চেষ্টা করছিলেন তিনি।

ঘটনার বর্ণনা দিয়ে বিভাগীয় পুলিশ কমিশনার মো. মোশারফ হোসেন আবেগাপ্লুত হয়ে কেঁদে ফেলেন। তিনি বলেন, অনেক কিউট ছিল মেয়েটি। দেখলে যে কারও আদর করতে ইচ্ছে করবে। বাবা-মায়ের একমাত্র সন্তান সে। মানুষের নৈতিকতা কোন পর্যায়ে গিয়ে পৌঁছেছে। আমি স্তব্ধ হয়ে গেলাম।

বিভিন্ন সময় বেশ কয়েকজনের কাছ থেকে গোলাম মোস্তফা টাকা ধার নেন। কিন্তু ঋণ পরিশোধ করতে না পেরে বাঁচার কৌশল হিসেবে নিজের মেয়েকে হত্যা করে পাওনাদারকে ফাঁসাতে চেয়েছেন তিনি। এ উদ্দেশে মঙ্গলবার নিজ বাসা থেকে মেয়ে অথৈকে নিয়ে নগরীর সদর রোডে কর্মস্থলে যান গোলাম মোস্তফা। পরে সেখানে অথৈকে শ্বাসরোধে হত্যার পর লাশ পাশের লেবু বাগানে ফেলে রাখেন।

এ ঘটনায় গতকাল সন্ধ্যায় অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামি করে বরিশাল সদর থানায় মামলা করেন নিহতের মা।

 

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আপনার মন্তব্য লিখুন