ভোটারদের যা যা জানতে হবে

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আর মাত্র তিনদিন বাকি৷ ভোট দেওয়া গণতান্ত্রিক অধিকার৷ কিন্তু এই অধিকার প্রয়োগের সময় একজন ভোটারকে কী কী নিয়ম মানতে হবে সেই বিষয়ে ধারণা আছে কি? জেনে নিন আপনার করণীয়:

Image result for ভোটারদের যা যা জানতে হবে

ভোট স্লিপ আবশ্যক

ভোটকেন্দ্রে আপনার সঙ্গে ভোট স্লিপ অবশ্যই থাকতে হবে৷ ওয়ার্ড কাউন্সিল থেকে আপনার বাড়িতে সেই স্লিপ পৌঁছে গেছে ইতোমধ্যে৷ অনেক এলাকায় প্রার্থীরা স্ব-উদ্যোগে তা সরবরাহ করেছেন৷ যদি না পেয়ে থাকেন, তবে নিজ এলাকার ওয়ার্ড কাউন্সিলে গিয়ে খোঁজ করুন৷ অথবা ইউনিয়ন পরিষদ ও চেয়ারম্যান কার্যালয়ে আছে আপনার ভোট স্লিপ৷ সংগ্রহ করে নিন৷

 

জাতীয় পরিচয়পত্র লাগবে না

অনেক ভোটার মনে করেন, জাতীয় পরিচয়পত্র ছাড়া ভোট দেওয়া যাবে না৷ এটি একদমই ভুল ধারণা৷ তাই ভোটার আইডি বা স্মার্ট কার্ড হারিয়ে গেছে বলে ভোট দিতে যাবেন না, এমন ভাবনা থেকে বের হয়ে আসুন৷ তবে ইভিএম এ ভোট দিতে গেলে ভোটার আইডি কার্ড নিয়ে যাওয়া উত্তম নতুবা আঙুলের ছাপ দিয়ে আপনাকে পরিচয় নিশ্চিত করে ভোট দিতে হবে৷

 

ভোট যখন যন্ত্রে

৯০০ কেন্দ্রে ইভিএমে ভোট গ্রহণ করা হবে৷ ইভিএমে স্মার্ট কার্ড বা আঙ্গুলের ছাপ বা ভোটার নম্বর বা জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বর ব্যবহার করে একজন ভোটারকে সনাক্ত করা হবে৷ বামপাশে প্রার্থীদের প্রতীক ও ডানপাশে নাম থাকবে৷ ভোট দানের জন্য পছন্দের প্রতীকের বামপাশে কালো বোতামে চাপ দিতে হবে৷ এতে পছন্দের প্রতীকের পাশের সাংকেতিক বাতি জ্বলে উঠবে৷ এর পর ডানপাশের সবুজ বোতামে চাপ দিয়ে ভোট নিশ্চিত করতে হবে৷

 

 

যা কিছু নিষিদ্ধ

ভোটকেন্দ্রে ভোট স্লিপ ছাড়আ আর কিছুই নেওয়া যাবে না৷ কোনো ধরনের দাহ্য পদার্থ, ম্যাচ, লাইটার, ধারালো বস্তু এমন সব কিছুই নিষিদ্ধ৷ ব্যাগ বহনেও নিষেধাজ্ঞা আছে৷ এমনকি মোবাইল ফোনও নিতে পারবেন না৷ ফোন যদি নিতেই হয়, তবে সেটি বন্ধ রাখতে হবে৷

 

সেলফি চেক-ইনে  মানা!

যে-কোনো উৎসব আয়োজনে এখন সেলফি বা চেক-ইন না দিলে আনন্দটাই যেন মাটি৷ কিন্তু এই সেলফি বা চেক-ইনে রয়েছে কঠোর মানা৷ ভোটকেন্দ্রে ঢোকার পর আপনি আপনার মোবাইল চালু রাখতে পারবেন না৷ কেন্দ্রের ভেতরের কোনো ছবি বা ব্যলটের ছবি অথবা কেন্দ্রে দাঁড়িয়ে চেক-ইন দেওয়া একদমই নিষেধ৷ ভোট কেন্দ্র থেকে বের হয়ে এসে নিশ্চিন্তে চেক-ইন দিতে ও সেলফি তুলতে পারবেন৷

 

 

পোশাকে নেই বাধা, তবে…

ভোট দিতে আপনি যে-কোনো পোশাক পরে যেতে পারেন৷ তবে যদি আপনি নেকাব পরে থাকেন, তবে পোলিং এজেন্টের অনুরোধে একবারের জন্য সেটি খুলে আপনার পরিচয় নিশ্চিত করতে হতে পারে৷

 

ব্যালট পেপার ভাঁজ করুন

ব্যালট পেপারে পছন্দের প্রার্থীর মার্কায় সিল দেওয়ার পর এমনভাবে ভাঁজ করে ব্যালট বাক্সে ফেলতে হবে যাতে সিলের কালি অন্য মার্কায় না ছড়ায়৷ নির্বাচন উপলক্ষে প্রায় প্রতিটি টিভি চ্যানেলে ব্যালট ভাঁজ পদ্ধতি দেখিয়ে পরমর্শমূলক বিজ্ঞাপন প্রচারিত হচ্ছে৷ সেটি দেখে নিন৷ ব্যালটের ভাঁজ ঠিক না হলে আপনার ভোট বাতিল হতে পারে৷

 

সঙ্গে থাকবে একজন

কোনো ভোটার বৃদ্ধ, অসুস্থ বা দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী হলে সঙ্গে একজন সহায়তাকারী নিয়ে ভোটকেন্দ্রে যেতে পারবেন৷ সেক্ষেত্রে সহায়তাকারীর সঙ্গে ভোটার আইডি থাকতে হবে৷

 

টেন্ডার ভোট!

ভোট কেন্দ্রে গিয়ে যদি দেখেন আপনার ভোট আগেই দিয়ে দেওয়া হয়ে গেছে, তাহলে হতাশ না হয়ে ভোটার স্লিপ, জাতীয় পরিচয়পত্র কিংবা আঙুলের ছাপ দিয়ে নিজের পরিচয় নিশ্চিত করতে পারলেই নিজের ভোটটা দিতে পারবেন৷ প্রিসাইডিং অফিসার তাঁর সই করা ব্যালটে আপনার সিল গ্রহণ করবেন এবং সেটি তাঁর কাছে রেখে দেবেন এবং গণনার সময় এটি যুক্ত করবেন৷ এই ভোটকে বলা হয় ‘টেন্ডার ভোট’৷

-ডিডব্লিউ

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আপনার মন্তব্য লিখুন