জেনে নিন দিব্যা ভারতী সম্পর্কে কয়েকটি অজানা তথ্য

সময়টা ৯০-এর দশক। বলিউডে তখন নতুন মুখের নায়িকাদের খুব একটা ভিড় ছিল না। পুরনোদের মধ্যেই হঠাত্ এসে হাজির হলেন ১৯ বছরের এক তরুণী। তিনি দিব্যা ভারতী। সেই সময়ের ইয়ং জেনারেশনের হার্টথ্রব। যেমন সৌন্দর্য, তেমনি তাঁর অভিনয়। বলিউডকে মাতিয়ে রেখেছিলেন তিনি। আসুন জেনে নিই তাঁর সম্পর্কে কিছু অজানা তথ্য।

Image result for দিব্যা ভারতী

১. এক বিমা আধিকারিক ওম প্রকাশ ভারতীর মেয়ে দিব্যা ভারতী। হিন্দি, ইংরাজি এবং মরাঠী ভাষায় সাবলীল ভাবে কথা বলতে পারতেন। সাধারণ মানের ছাত্রী ছিলেন। নবম শ্রেণিতে পড়তে পড়তেই অভিনয়ের জগতে পা রাখেন।

২. ১৯ বছর বয়সেই তাঁর অভিনয়ে বলিউডকে মাতিয়ে রেখেছিলেন। ২৩ বছর হয়ে গেল তাঁর মৃত্যু হয়েছে। কিন্তু দিব্যার লুক আর অভিনয় এখনও মানুষের মনের মধ্যে বেঁচে রয়েছে।

৩. বলিউডে যত তাড়াতাড়ি সাফল্য পেয়েছিলেন, ঠিক তেমনই অল্প বয়সেই বলিউডকে বিদায় জানিয়েছিলেন। তাঁর আচমকা মৃত্যুতে গোটা দেশে তাঁর ভক্তদের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে এসেছিল।

৪. ১৯৭৪-এর ২৫ ফেব্রুয়ারিতে দিব্যার জন্ম। আশ্চর্যের বিষয়, বলিউডে রাজ করলেও দিব্যা কিন্তু কখনওই অভিনেত্রী হতে চাননি। পড়াশোনা থেকে মুক্তি পেতে তিনি নাকি ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে আসেন।

৫. মুম্বই আসার পর দক্ষিণের এক প্রযোজক ডি রামানাইডুর সঙ্গে দিব্যার আলাপ হয়। ওই প্রযোজকের হাত ধরেই দিব্যার অভিনয়ে আসা।

৬. তামিল ছবি ‘ববিলি রাজা’তে প্রথম অভিনয় করেন। তাঁর বিপরীতে ছিলেন ডাগ্গুবতী ভেঙ্কটেশ। ছবিতে সাইন করার সময় সাইনিং অ্যামাউন্ট সম্পর্কে কোনও ধারণা ছিল না।

৭. ১৮ বছর বয়সেই দিব্যা বাড়ির অমতে বিয়ে করেছিলেন পরিচালক সাজিদ নাদিয়াদওয়ালাকে। সবার অলক্ষে চুপিসাড়ে ১৯৯২-এর ১০ মে কোর্টে গিয়ে দু’জনে বিয়ে করেন। বিয়ের পর তাঁর নাম হয় সানা।

৮. তর তর করে তাঁর ফিল্ম কেরিয়ার এগিয়ে চলছিল। অভিনয়ে আসার খুব অল্প সময়ের মধ্যেই ‘দিওয়ানা’ ছবির জন্য ১৯৯২-তে ফিল্মফেয়ার পুরস্কার পেয়েছিলেন।

৯. ১৯৯১-এ পর পর দু’টি তেলুগু ছবিতে সাফল্য পাওয়ার পরই অফার আসে বলিউড থেকেও। বলিউডে তাঁর প্রথম ছবি ‘বিশ্বাত্মা’। ওই ছবিতে ‘সাত সমুন্দর’ গানে পুরো দেশকে নাচিয়ে ছেড়েছিলেন।

১০. ১৯৯৩-র ৫ এপ্রিল হঠাত্ই খবর আসে বাড়ির ব্যালকনি থেকে পড়ে মৃত্যু হয়েছে দিব্যার। কেই বিশ্বাসই করতে পারছিলেন না যে দিব্যা বেঁচে নেই। পুলিশে রিপোর্ট লেখানো হয় নেশা করার ফলেই ব্যালকনি থেকে পড়ে গিয়েছিলেন তিনি। তাঁর স্বামী সাজিদের উপর অনেকেই সন্দেহ করছিলেন। কিন্তু পোক্ত কোনও প্রমাণ ছিল না। তাই দিব্যার মৃত্যুর রহস্য রহস্যই থেকে যায়।

Spread the love
  • 10
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    10
    Shares

আপনার মন্তব্য লিখুন