‘কুমির দেবতা’ মারা গেল, কান্নায় ভেঙে পড়ল গোটা গ্রাম

গোটা গ্রাম জুড়ে যেন শোকের আবহ। কোনও বাড়িতে রান্না হয়নি, কাজেও যাননি কেউ। গ্রামের সকলের প্রিয় গঙ্গারামের মৃত্যুর খবরেই ভেঙে পড়েছেন সকলে। তবে এই গঙ্গারাম কিন্তু মানুষ নয়! একটি কুমির, তার মৃত্যুর শোকেই কাতর গ্রামবাসীরা।

এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, ছত্তিশগড়ের বেমেতারা জেলার বাওয়া মোহতারা গ্রামের। এই গ্রামের মধ্যে একটি পুকুরে বহু বছর ধরে বাস ছিল এই কুমিরটির। স্থানীয়দের দাবি, এই কুমিরটি তাঁদের রক্ষাকর্তা। বাইরের কুনজর থেকে গ্রামকে রক্ষা করে এই কুমিরটি।

Image result for কুমির

জানা গিয়েছে, আজ পর্যন্ত গ্রামবাসীদের কারও কোনও ক্ষতি করেনি এই কুমিরটি। এমনকী পুকুরে নেমে সাঁতার কাটলেও সে কিছুই করেনি। গ্রামবাসীরা কুমিরটিকে গঙ্গারাম বলে ডাকতেন। তাঁদের দাবি, কুমিরটির বয়স ১৩০ বছর।

বুধবার বিকালে এই কুমিরটির দেহ জলে ভাসতে দেখেন কয়েক জন গ্রামবাসী। মুহূর্তের মধ্যে গঙ্গারামের মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে যায় গোটা গ্রামে। শোকে কাতর হয়ে যান সকলে। শেষ শ্রদ্ধা জানাতে হাজির হন কমপক্ষে ৫০০ জন গ্রামবাসী।

কুমিরটির স্মরণে ওই পুকুরের উপরেই একটি মন্দির নির্মাণ করতে চান এলাকাবাসীরা। সেখানেই গঙ্গারামের নিয়মিত পুজো করবেন তাঁরা।

ময়নাতদন্তের পরে গঙ্গারামের দেহ গ্রামবাসীদের হাতে ফিরিয়ে দিয়েছে বন দফতর। বার্ধক্যজনিত কারণে ওই কুমিরটির মৃত্যু হয়ে বলে মনে করছেন বন দফতরের কর্তারা।

সূত্রঃএবেলা

Spread the love
  • 4
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    4
    Shares

আপনার মন্তব্য লিখুন